Collective Bargaining | Freedom of Association Policy

Collective Bargaining | Freedom of Association Policy

Collective Bargaining Policy | Policy No 19

শ্রমিক সংগঠনের উদ্দেশ্য হলো মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে সুসম্পর্ক স্থাপন করা, মালিক ও শ্রমিক উভয়ের স্বার্থ সংরক্ষন করা, আলোচনার মাধ্যমে শ্রমিক ও মালিক পক্ষের উদ্ভুত সমস্যার সমাধান করা, পন্যের গুণগত মান উন্নয়ন ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে সংশি¬ষ্ট সকলকে উদ্বুদ্ধ করা এবং কারখানার সার্বিক উন্নয়নে সকলের অংশগ্রহণকে সক্রিয় রাখা।
কমপ্লায়েন্স বাংলাদেশ .কম । ComplianceBangladesh.com (কোম্পানীর নাম) কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের সংঘবদ্ধ হওয়াকে সর্বতোভাবে সমর্থন করবে এবং নিন্মোক্ত নীতিমালা মানিয়া চলিবে।

স্বাধীন সংগঠন:
পোষাক শিল্প প্রতিষ্ঠান কর্মচারীদের অধিকার সংক্ষরণ এবং যে কোন সংগঠন করার পূর্ণ অধিকার ও মর্যাদা প্রদান করে।
কমপ্লায়েন্স বাংলাদেশ .কম । ComplianceBangladesh.com (কোম্পানীর নাম) পোষাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক কর্মচারীদের অধিকার সংরক্ষণ এবং যে কোন সংগঠন করার পূর্ণ অধিকার ও মর্যাদা প্রদান করে। অধ্যাদেশে বর্ণিত বিধান সাপেক্ষে শ্রমিক/কর্মচারী কর্তৃক ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের যে কোন উদ্যোগের প্রতি কারখানা কর্তৃপক্ষ সমর্থন প্রদান করে। আমাদের শিল্প প্রতিষ্ঠানের একটি কমিটি রয়েছে যা “অংশগ্রহণকারী কমিটি” (পিসি) নামে পরিচিত। মালিক ও শ্রমিক উভয় পক্ষের প্রতিনিধিদের নিয়ে এ কমিটি গঠিত। শ্রমিকগণ স্বাধীনভাবে তাদের মতামত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে কর্তৃপক্ষের নিকট জানাতে পারেন অন্যদিকে মালিক পক্ষও কমিটির উত্থাপিত বিভিন্ন সমস্যাবলীর সমাধান দিয়ে থাকেন। এ ছাড়াও টয়লেটে রক্ষিত অভিযোগ বাক্সের মাধ্যমে শ্রমিকগণ তাদের অভিযোগ জানাতে পারেন। প্রতি সপ্তাহের শনিবার অভিযোগ/পরামর্শ বাক্স খোলা হয়।

ক. ভেদাভেদ নির্বিশেষে যে কোন প্রকার পূর্ব অনুমতি ছাড়াই কেবল সংশ্লিষ্ট সংগঠনের বিধিমালা সাপেক্ষে নিজেদের পছন্দমত সমিতি গঠনের এবং সমিতিতে যোগদানের অধিকার সকল শ্রেণীর শ্রমিকদের আছে।
খ. শ্রমিক ও কর্মচারী সমিতি সমূহের নিজস্ব সংবিধান ও বিধিমালা প্রণয়নের, সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে প্রতিনিধি নির্বাচন, কর্মতৎপরতা সংবিধান ও বিধিমালা প্রণয়নের সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে প্রতিনিধি নির্বাচনের, কর্মতৎপরতা সংগঠন সমিতি প্রশাসন ও কর্মসূচী প্রণয়নের অধিকার থাকবে।
গ. অ-রেজিষ্টিকৃত অথবা রেজিষ্টেশন বাতিল হয়েছে এমন কোন ট্রেড ইউনিয়নের সদস্যরা ট্রেড ইউনিয়নের কাজ চালাতে পারবে না।
ঘ. কোন শ্রমিক একই সময়ে একাধিক ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য পদ গ্রহণ বা সদস্য পদ অব্যাহত রাখতে পারে না।

কর্তৃপক্ষের বাধ্যবাধকতা:
ক. কর্তৃপক্ষ কোন ব্যক্তির উপর ট্রেড ইউনিয়নে যোগদানের বা ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য পদ বহাল রাখার অধিকার হরন করে কোন শর্ত আরোপ করতে পারবে না।
খ. কোন ব্যক্তি কোন ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য বা কর্মকর্তা পদে বহাল আছেন বা না আছেন, তার ভিত্তিতে চাকুরী প্রদানের চাকুরীতে বহাল রাখতে অস্বীকার করতে পারবে না।
গ. কোন ব্যক্তি কোন ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য আছেন কিনা তার ভিত্তিতে চাকুরীতে নিযুক্তি, পদোন্নতি, চাকুরীর শর্ত বা কাজের শর্ত নির্ধারনের বৈষম্য করতে পারবে না।
ঘ. কোন ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য বা কর্মকর্তা হয়েছেন বা হাবার ইচ্ছা পোষন করেছেন অথবা সদস্য বা কর্মকর্তা হবার জন্য কোন ব্যক্তিকে সম্মত করার চেষ্টা করেছেন অথবা কোন ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের, উন্নয়নের বা কর্ম তৎপরতা চালানোর কাজে অংশগ্রহনের জন্য কোন শ্রমিককে চাকুরী থেকে বরখাস্ত, পদচ্যুত বা অপসারনের হুমকি কিংবা চাকুরী ক্ষতিগ্রস্থ হুমকি দেয়া যাবে না।
ঙ. কোন ব্যক্তিকে ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য বা কর্মকর্তা হয়ে থাকলে তা বর্জনের জন্য প্রলুদ্ধ করা যাবে না।
চ. ভীতি প্রদর্শন, দমননীতি চাপ প্রয়োগ অথবা আহত করে কোন শ্রমিককে কোন চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করা যাবে না।
ছ. নির্বাচন চালাকালীন সময়ে কর্তৃপক্ষ কোনরুপ হস্তক্ষেপ বা প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না।
জ. বৈধ ধর্মঘট চলাকালীন সময়ে কর্তৃপক্ষ নতুন কোন শ্রমিক নিয়োগ করতে পারবে না।

শ্রমিকদের বাধ্যবাধকতা:
ক. কাজ চলাকালীন সময়ে কোন শ্রমিককে ট্রেড ইউনিয়নে যোগদানের জন্য বা যোগদান থেকে বিরত থাকার জন্য সম্মত করার চেষ্টা করা যাবে না।
খ. ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য বা কর্মকর্তা হবার জন্য অথবা বিরত থাকার জন্য অথবা সদস্য বা কর্মকর্তা পদে বহাল থাকার জন্য সম্মত করার চেষ্টা করা যাবে না।
গ. ভীতি প্রদর্শন, দমননীতি, চাপ প্রয়োগ, আটকে রেখে অথবা আহত করে কোন শ্রমিককে ট্রেড ইউনিয়নের চাঁদা দিতে বা বিরত থাকতে বাধ্য বা চেষ্টা করা যাবে না।
ঘ. কোন শ্রমিকের ধর্মঘট চলাকালীন সময়ে কোন ট্রেড ইউনিয়নের কোনরূপ হস্তক্ষেপ বা প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না।

” Collective Bargaining/ Freedom of Association Policy ” নিম্ন বাটনে ক্লিক করে  ডাউনলোড করে নিন।

” Collective Bargaining | Freedom of Association Policy ” 

আরও নতুন পোস্ট

About The Author

Rakib Sarowar

Rakib Sarowar is the founder and lead author of the Compliance Bangladesh. His passion for helping people in all aspectes of Compliance Related Issues. He is very keen to learn new things, especially Technology. In addition to write for CB, Rakib also engage as a Deputy Manager- Compiance & Industrial Safety in a multinational RMG complany.

Leave a Reply

আমাদের সাথে থাকুন